কে প্রথম কাছে এসেছিল??

0
50

২০ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাবে বছরের অন্যতম প্রতীক্ষিত ছবি ‘প্রস্থানাম’। ছবির অভিনয়শিল্পীদের এখন সব ব্যস্ততা প্রচারণা নিয়ে। আর সে জন্য ‘দ্য কপিল শর্মা শো’র চেয়ে ভালো প্ল্যাটফর্ম খুব কমই আছে। আজ শনিবার রাতে সনি এন্টারটেইনমেন্ট টেলিভিশনের কপিল শর্মার শোতে দেখা যাবে এই ছবির দলকে। সেখানেই বেরিয়ে আসবে ‘প্রস্থানাম’, সঞ্জয় দত্তের সংসারজীবনসহ আরও নানা গল্প।

আজকের ‘দ্য কপিল শর্মা শো’
‘প্রস্থানাম’ ছবির দল থেকে আজ ‘দ্য কপিল শর্মার শো’তে সঞ্জয় দত্ত ও চাঙ্কি পান্ডে বলিউডে তাঁদের যাত্রা নিয়ে কথা বলবেন। অন্যদিকে ‘প্রস্থানাম’ ছবির প্রযোজক ও সঞ্জয় দত্তের স্ত্রী মান্যতা দত্ত শুটিংয়ের দিনগুলোর মজার ঘটনা নিয়ে কথা বলবেন। পরে সত্যজিৎ দুবে, আলী ফজলও যোগ দেবেন তাঁদের সঙ্গে। কৃষ্ণা অভিষেক আর চন্দন প্রভাকর সঞ্জয় দত্তের বিভিন্ন চরিত্র নিয়ে হাজির হবেন মঞ্চে। তা দেখে হেসে লুটোপুটি খাবেন সঞ্জয় দত্ত আর অন্যরা।

সঞ্জয় দত্ত আর মান্যতা দত্তের সম্পর্ক
এই মঞ্চে এই তারকা জুটি মন খুলে বলবেন নিজেদের পারিবারিক জীবন আর সম্পর্কের জটিল হিসাব নিয়ে। তাঁদের চেনাজানা অনেক দিনের, ১৭ বছরের মতো। বিয়ের আগে তাঁদের ছয় বছরের সম্পর্ক। এই সময়কে আবার সমঝোতার ভিত্তিতে সমান দুই ভাগে ভাগ করেছেন তাঁরা। তিন বছর বন্ধুত্বের। আর তিন বছর প্রেমের। আর বিয়ের পরে তো ১১ বছর হতে চলল। তবে তাঁদের সম্পর্কের একটা মজার ব্যাপার হলো, মান্যতা রান্না করতে খুব ভালোবাসেন। আর সঞ্জয় দত্ত খেতে পছন্দ করেন। তবে মান্যতা জানালেন, খুব সহজেই রেগে যান তিনি। আর সঞ্জয় দত্ত নাকি দিনে অন্তত ৫০ বার তাঁকে ডেকে ‘বিরক্ত’ করেন।

‘দ্য কপিল শর্মা শো’র সেটে মান্যতা দত্ত, ভারতী সিং ও সঞ্য় দত্ত। ছবি: ‘দ্য কপিল শর্মা শো’র ইনস্টাগ্রাম পেজ থেকে নেওয়া হয়েছেকে প্রথম কাছে এসেছিল
এই প্রশ্নের উত্তরটা প্রথাবিরোধী। সঞ্জয় দত্ত নয়, মান্যতাই নাকি সঞ্জয়কে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। ‘প্রস্থানাম’ ছবির শুটিংয়ের দিনগুলোর কথাও উঠে এসেছে মান্যতার কথায়। সঞ্জয় দত্ত নাকি সেটে বিভিন্নভাবে মান্যতা দত্তকে বিরক্ত করতেন। আর শুটিংয়ে আসতেন দেরি করে।

স্ত্রীকে মিথ্যে বলেন সঞ্জয়
নারীদের নাকি বয়স জিজ্ঞেস করতে নেই, আর পুরুষের বেতন। সঞ্জয় দত্ত কিন্তু মোটেই একেবারে ‘সাধাসিধে ভালো মানুষ’ স্বামীটি নন। নাকি নিজের বেতনের ব্যাপারে কখনোই সঠিক তথ্য দেন না স্ত্রীকে। নিজের অর্থসম্পদের হিসাব, আর্থিক চুক্তি স্ত্রীর কাছ থেকে গোপন রাখতে ভালোবাসেন তিনি। তবে যা আয় করেন, তার কিছু অংশ নিজের কাছে আর বাকিটা স্ত্রীকে দেন। কিন্তু এই কিছু অংশ আর বাকিটার অনুপাত নিয়ে মুখ খোলেননি তিনি

‘পান্ডু’ থেকে ‘পান্ডেজি’
চাঙ্কি পান্ডে জানালেন, তাঁর নেতিবাচক চরিত্র করার অনুপ্রেরণা নাকি তাঁর স্ত্রী। স্ত্রী ভাবনা পান্ডেই নাকি তাঁকে এ ধরনের চরিত্রে অভিনয় করতে অনুপ্রাণিত করেন। ফলে যখনই ঝগড়া হয়, তখন স্ত্রী ওই নেতিবাচক চরিত্রগুলোর সঙ্গে চাঙ্কি পান্ডের তুলনা করেন। ওই চরিত্রগুলোর নাম ধরে ডাকেন। আগে নাকি সবাই তাঁকে ‘পান্ডু’ বলে ডাকত। আর এখন ‘পান্ডেজি’ বলে। এই পরিবর্তন হয়েছে নেতিবাচক চরিত্রগুলোর ভয় থেকে।

সঞ্জয় দত্তের স্ত্রী মান্যতা দত্ত এই ছবির প্রযোজক। আর ছবিটি পরিবেশিত হবে সঞ্জয় এস দত্তের ব্যানারে। সঞ্জয় দত্ত আর মনীষা কৈরালা ছাড়াও এই ছবিতে আরও দেখা যাবে জ্যাকি শ্রফ, চাঙ্কি পান্ডে, আলী ফজলসহ আরও অনেককে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে