কিভাবে তিন স্কুলছাত্রী বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেয়েছে দেখুন…

0
185

সিরাজগঞ্জের পৌরসভায় তিন স্কুলছাত্রী বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেয়েছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে গতকাল রোববার বিকেল পাঁচটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত বিয়েগুলো বন্ধ করেন সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুর রহমান। এ সময় বর ও কনের বাবাদের কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত ও স্থানীয় লোকজন সূত্রে জানা যায়, ভ্রাম্যমাণ আদালত বিকেল পাঁচটায় প্রথমে অষ্টম শ্রেণির (১৫) এক ছাত্রী, সন্ধ্যা সাতটার দিকে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রী (১৪) এবং রাত আটটার দিকে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর (১৬) বিয়ে বন্ধ করেন। তিনটি বাল্যবিবাহের একটিতে বর ও কনে দুজনই অপ্রাপ্তবয়স্ক। আর দুটিতে কনে অপ্রাপ্তবয়স্ক। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত বর ও কনের বাবাদের কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। তাঁদের দুজনের কাছ থেকেই ছেলে ও মেয়ে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না বলে মুচলেকা নেওয়া হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতকে সহযোগিতা করেন পৌর ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম, নূরে এলাহী, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের (এনডিপি) প্রতিনিধি মোছা. কুমকুম ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যরা।

আজ সোমবার সকালে সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বাল্যবিবাহবিরোধী এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। আইন অমান্য করে যাঁরা অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলেমেয়ের বিয়ের আয়োজন করার চেষ্টা করবেন, তাঁদের আইন দিয়ে ও সামাজিকভাবে থামানোর চেষ্টা করতে হবে। এ জন্য সমাজের সবার সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে